পেশা যখন সিভি রাইটিং

Thinking about professional career.

বেকার সমস্যা বাংলাদেশের একটি প্রধান ও বড় সমস্যা। আমাদের নিজ নিজ জায়গা থেকে এ সমস্যা সমাধানে এগিয়ে আসা প্রয়োজন। সরকারি চাকুরিপ্রার্থী বেকারদের জন্য "মরার উপর খাড়ার ঘা" এর মতো আর একটি সমস্যা হল - ব্যাংক ড্রাফট। যাদের ভাইভা দিতে যাওয়ার জন্য ভালমত একজোড়া জুতা মেলে না, অনেক সময় স্যান্ডেল পড়ে ভাইভা দিতে যেতে হয় - তাদের জন্য ব্যাংক ড্রাফট হল এক অভিশাপ।

ইদানিং বেসরকারী চাকুরিপ্রার্থীদের জন্যেও আরেক ব্যবসায়ীক ফাদ হল সিভি রাইটিং, সিভি এডিটিং। আমার মনে হয়, বিটিভিতে প্রচারিত “ইত্যাদি”র মামা-ভাগ্নে নাট্যাংশ দেখে দেখে এসব উদ্ভট আইডিয়া পয়দা হয়েছে।

আরে ভাই, সিভি যেহেতু ক্যারিয়ারের একটি গুরুত্বপূর্ণ অনুষঙ্গ, তাই এটার জন্য টাইপিস্ট হয়ে বা টাইপিস্টের মতো কাজ না করে “মডারেটর” হয়ে কাজ করা উচিৎ। চাকুরিপ্রার্থীদের আত্মবিশ্বাস বাড়ানো নিয়ে কাজ করুন। চাকুরির বাজারে তাদের যোগ্য করে তুলতে এডভোকেসী লেভেলে কাজ করুন। মানে অনেকগুলো মোটিভেশনাল বিষয় যুক্ত করে ট্রেনিং মড্যুউল সাজান, এর মধ্যে সিভি’র বিষয়টাও থাকবে।

যখন দেখি চারপাশে ব্যাঙের ছাতার মতো সিভি রাইটিং ব্যবসা গজিয়ে উঠছে, তখন অনেকের মতো আমার নিজেরও আত্মবিশ্বাস কমে যায়। আমার এই সিভি দিয়ে একটা ভাল চাকরি হবে তো? সিভি রাইটাররা যেভাবে “আয়ুর্বেদিক” কোম্পানির মতো চমকপ্রদ ও ভয় জাগানো বিজ্ঞাপন দিয়ে যাচ্ছে, তাতে কম-বেশি সবারই নিজের সিভি নিয়ে আত্মবিশ্বাস কমে যায়।

..................................
নূরুন্নবী খান
কমপ্লায়েন্স প্রফেশনাল
ঢাকা, বাংলাদেশ।

2349 Views